reorder disabled_by_default

কর হারের গরমিলে করদাতাকে বেশি কর দিতে হয়

Update : 18 Feb 2024 - 5:43 PM    |     পঠিত হয়েছে: 19 বার
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
কর ব্যবস্থার হারের গরমিলের কারণে করদাতাকে অনেক সময় নির্ধারিত করের চেয়ে বেশি কর দিতে হচ্ছে বলে মনে করছেন প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান।
রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারি) ঢাকা চেম্বারে আয়োজিত ‘বেসরকারি খাতের দৃষ্টিতে বাংলাদেশের অর্থনীতির সামগ্রিক পর্যালোচনা (জুলাই-ডিসেম্বর, অর্থবছর ২০২৪)’ শীর্ষক সেমিনারে তিনি এ মন্তব্য করেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. মসিউর রহমান বলেন, গত কয়েক দশকে আমাদের অর্থনীতিতে মৌলিক পরিবর্তন এসেছে, তার মধ্যে বেসরকারি খাতের সম্প্রসারণ অন্যতম। যেকোনো নীতির সফল বাস্তবায়ন হবে না, যদি না ব্যক্তিখাতের সমস্যা ও সম্ভাবনাকে মূল্যায়ন করে নীতি প্রণয়ন না হয়। সেই সঙ্গে বেসরকারি খাতকে সব সমস্যা সমাধানে সরকারের ওপর নির্ভর করার পরামর্শ দেন তিনি।
উপদেষ্টা বলেন, কর ব্যবস্থাপনা নিয়ে পুরোনো কথাবার্তা এখনো চলছে, বিষয়টি নিয়ে আরও গভীরভাবে পর্যালোচনা প্রয়োজন। দেশের জাতীয় আয় ও রাজস্বের অনুপাত বাড়ানোর কোনো বিকল্প নেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, কর ব্যবস্থার হারের গরমিলের কারণে করদাতাকে অনেক সময় নির্ধারিত করের চেয়ে বেশি কর প্রদান করতে হচ্ছে, যা কাম্য নয়। বিনিয়োগে স্থবিরতা কাটাতে বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণের কোনো বিকল্প নেই। তবে বিনিয়োগের সঙ্গে সম্পর্কিত বিষয়গুলোতে প্রাপ্তিতে সরকারের এগিয়ে আসতে হবে।
ড. মসিউর রহমান বলেন, ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্প্রসারণে নীতির স্থিতিশীলতার কোনো বিকল্প নেই। রপ্তানি পণ্য ও বাজার সম্প্রসারণে কারো কোনো দ্বিমত নেই, তবে নতুন পণ্য ও নতুন বিনিয়োগ বিষয়ে নানামুখী চাপ রয়েছে। উৎপাদনশীলতা বাড়াতে আমাদের আরও মনোযোগী হতে হবে।
বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজের (বিআইডিএস) রিসার্চ ডিরেক্টর ড. মোহাম্মদ ইউনুস বলেন, কর ব্যবস্থাপনা ও কর আদায় প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা আনয়ন অপরিহার্য। শিল্প খাতের প্রয়োজনের নিরিখে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরিতে আমাদের শিক্ষা খাতের সংস্কার ও বিশেষ করে কারিগরি শিক্ষার ওপর আরও অধিক হারে গুরুত্ব দিতে হবে। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের জন্য আমরা এখনো প্রস্তুত নই, যেটা উদ্বেগের বিষয়।
এছাড়াও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য সহনীয় রাখতে চাঁদাবাজি বন্ধের জন্য উদ্যোগী হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

এই বিভাগের আরও খবর